শুক্রবার, আগস্ট 7, 2020
Home টাঙ্গাইল কাঠের বাঁট কালো সুতি কাপড়ের ছাতার দিন নেই টাঙ্গাইলে

কাঠের বাঁট কালো সুতি কাপড়ের ছাতার দিন নেই টাঙ্গাইলে

জাহিদ হাসান ॥
কত কিছু হারিয়ে গেল! হারিয়ে গেল ছাতাটাও। সেই যে কাঠের বাঁট, কালো সুতি কাপড়ের আচ্ছাদন। নেই কোথাও আজ। দেশীয় ছাতা ব্যবহারের শৈশবস্মৃতি- কখন যেন, কীভাবে যেন বিলীন হয়ে গেছে। স্টাইলিশ হতে চায়না ছাতার দিকে ঝুঁকেছে টাঙ্গাইলবাসী।
অথচ কিছুকাল আগেও ছাতা মানেই ছিল দেশীয় ছাতা। ৩০ থেকে ৩২ ইঞ্চি লম্বা কাঠের বাঁট। কালো সুতি কাপড়ের ছাউনি। ২২, ২৪ কিংবা ২৬ ইঞ্চি ঘের। এর বাইরে হাতের লাঠির মতো বাঁকানো বাঁট ব্যবহারকারীর আভিজাত্যকে তুলে ধরত। আজ কিছুই তেমন দেখা যায় না।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেট, চট্টগ্রাম, রংপুর, বরিশালসহ দেশের হাতেগোনা কয়েকটি এলাকায় এখন দেশীয় ছাতা প্রস্তুত করা হয়। বিক্রিও হয় স্থানীয়ভাবেই। টাঙ্গাইলে ছাতা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্বাধীনতার পর পর আলাউদ্দিন ছাতার নাম ছিল সবার মুখে মুখে। কিন্তু এখন এর কোন অস্তিত্ব নেই। একই পরিণতি হয়েছে চাহিদার তুঙ্গে থাকা শফিউদ্দিন ছাতার। নওয়াব ছাতা, জাহাজ মার্কা সানোয়ার ছাতা, শরীফ ছাতা, এটলাস ছাতা, লাবনী ছাতাসহ কয়েকটি ব্র্যান্ড খুবই নাম করেছিল। ঢাকায় প্রস্তুত এসব ছাতার চাহিদা ছিল টাঙ্গাইলব্যাপী। সীমিত আকারে চালু থাকা টাঙ্গাইলের বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা যায় প্রায় সব দোকানে চায়না ছাতা। ছাতাগুলো দেখতে সত্যি সুন্দর। নানা রঙের ছাতা। সহজেই দৃষ্টি কাড়ে। গুটিয়ে নিলে বোঝাই যায় না, এটি ছাতা নাকি পানির বোতল! ছেলেরা পকেটে পুরে নিতে পারে। কর্মজীবী নারী ফেলে রাখতে পারে ভ্যানিটি ব্যাগের এক কোণে। আর দাম? একেবারে সস্তা। ১০০ টাকায়ও পাওয়া যায় চায়না ছাতা। সব দেখে বুঝতে বাকি থাকে না, কেন বাইরের ছাতায় বাজার সয়লাভ হয়ে গেছে।
টাঙ্গাইল শহরের কয়েকটি ছাতার দোকানগুলোতে দেখা যায়, হরেক রকম চায়না ছাতা ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। দেশী ছাতা নেই? জানতে চাইলে দোকান মালিক অনেক খুঁজে দুটি ছাতা বের করেন। দোকানিরা টিনিউজকে বলেন, আমরা তো এখনও দেশী ছাতাই ভাল মনে করি। কী মজবুত মাল। একসময় আমরা খুব বিক্রি করছি। কাস্টমাররে দিয়া শেষ করতে পারি নাই। এখন কাস্টমার চায় চায়না ছাতা। আমরা এই কারণেই বেশি বেশি চায়না ছাড়া রাখি ও বিক্রি করি। তবে এখনও কিছু দেশীয় ছাতা চলে বলে জানান তারা। ব্যবসায়ীরা টিনিউজকে আরও বলেন, চায়না ছাতার চেয়ে দেশীয় ছাতার মান ও গুণ অনেক ভাল ছিল। অনেক দিন টেকসই ছিল। বর্তমানে চায়না ছাতার চাকচিক্য ও ডিজাইন অনেক সুন্দর। কিন্তু মজবুত ও টেকসই না। তারপরও চায়না ছাতার প্রতি মানুষের চাহিদা বেশী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ব্রেকিং নিউজঃ