সরকার সাংবাদিকদের কল্যানে কাজ করছেন- পিআইবি’র মহাপরিচালক

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
প্রেস ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআইবি) মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ বলেছেন, বাংলাদেশের মতো সারাবিশ্বের আর কোথাও সরকারিভাবে সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয় না। একমাত্র বাংলাদেশেই সাংবাদিকদের সরকারি অর্থায়নে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। সাংবাদিকদের সম্মানের সাথে সব ক্ষেত্রেই এগিয়ে যেতে হবে।
তিনি শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) বিকেলে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে তিন দিনব্যাপী অনুসন্ধানীমূলক রিপোর্টিং প্রশিক্ষণ শেষে সমাপনী অনুষ্ঠানে সভা প্রধানের বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার সাংবাদিকদের কল্যানে কাজ করছেন। বর্তমান সরকার সাংবাদিক বান্ধব। বিভিন্ন ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের অনেক ভূমিকা রয়েছে। গণমাধ্যম হচ্ছে সেই মাধ্যম, যে জনসচেতনা তৈরি করতে পারে। জেলার পাশাপাশি উপজেলা পর্যায়েও কর্মরত সাংবাদিকদের পিআইবি’র উদ্যোগে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু প্রথম প্রেস ইনস্টিটিউট করার পরিকল্পনা করেছিলেন। সাংবাদিকদের নিরাপত্তার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। আগের তুলনায় সাংবাদিকতা অনেক সহজ হয়েছে। বর্তমানে ডেটা সাংবাদিকতা চালু হয়েছে। ভবিষ্যতে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।
তিনি আরো বলেন, সাংবাদিকদের বেতন দেয়ার জন্য ওয়েজবোর্ড চালু করা হয়েছে। কিন্তু সেই ওয়েজবোর্ড অনুয়ায়ী বেতন দেয়া হয় না। এ কারণে সরকার সরকারি বিজ্ঞাপনের মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। যেনো সকল সাংবাদিকরা বেতন ঠিক মতো পায়। কিন্তু মালিকরা সব করলেও, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সাংবাদিকদের ঠিকমতো বেতন দিচ্ছে না। আমরা এমন ব্যবস্থা করছি যে, মালিকপক্ষ বেতন দিতে বাধ্য হয়। প্রধানমন্ত্রী অনেক টেলিভিশনের লাইন্সেন দিয়ে সাংবাদিকদের চাকরির সুযোগ করে দিয়েছে। আগে আমলারা সাংবাদিকদের কোন তথ্য দিতে চাইতো না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তথ্য অধিকার আইন চালু করে সবাইকে তথ্য দিতে বাধ্য করেছেন।
টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন টাঙ্গাইল-৮ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট জাফর আহমেদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক আশরাফ আলী, কনিষ্ঠ প্রশিক্ষক মোহাম্মদ শাহ আলম, কামনাশীষ শেখর, ইফতেখারুল অনুপম, অরণ্য ইমতিয়াজ।
গত (১৫ জানুয়ারি) থেকে শুরু হওয়া প্রশিক্ষণে টাঙ্গাইল শহরে কর্মরত বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার ৩৫ জন সাংবাদিক এতে অংশ নেন। তিনদিনের এই প্রশিক্ষনে রিসোর্সপার্সন ছিলেন নিউইয়র্ক টাইমস এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি জুলফিকার আলি মাণিক, বাংলা ভিশনের সিনিয়র বার্তা সম্পাদক রুহুল আমিন রুশদ। পরে তাদের হাতে সনদপত্র তুলে দেয়া হয়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ