Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

সখীপুরে সফল কৃষক মোসলেম নিজের ভাগ্যকে বদলিয়েছেন

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
অন্যের বাড়িতে কাজ করে কোন রকমে দিন চলতো মোসলেম উদ্দিন ও তার পরিবারের সদস্যদের। আবার অনেক সময় হাট-বাজারে বিভিন্ন ধরনের পন্য সামগ্রী ফেরি করেও চলতে হয়েছে তাকে। কিন্তু জীবনের লক্ষ্য ছিল কিছু করার। সমাজের আর দশজনের মতো তারও ইচ্ছা ছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার। কৃষিতে সফলতা পেয়ে তিনি প্রমান করে দেখিয়েছেন যে কোন অবস্থা থেকে নিজের ভাগ্যকে বদলানো সম্ভব।

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলা শহরের পাশেই গজারিয়া ইউনিয়নের কীর্তণ খোলা গ্রামে জন্ম মোসলেম উদ্দিনের। কৃষক পরিবারের সন্তান তিনি। অভাবের কারণে স্কুলের বারান্দা পর্যন্ত যেতে পারেননি মোসলেম। কিন্তু কোন কাজকে ছোট করে দেখতেন না তিনি। তার জীবনের লক্ষ ছিল ভালো কিছু করার। মোসলেম অভাবের সংসারে হাল ধরতে এক সময় চিন্তা করেন বিদেশ গিয়ে কাজ করবেন। কিন্তু সে ভাগ্য হয়নি তার। দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে সব আশা শেষ হয়। কিন্তু তাতেও থেমে থাকেননি মোসলেম। বাড়ির আঙ্গিনায় কিছু ফল ও সবজির চাষ শুরু করেন। এরপর মোসলেম উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাথে পরামর্শ করে ২০১৩ সালে স্থানীয় একজনের জায়গা লিজ নিয়ে লেবুর বাগান করেন এবং দীর্ঘ পরিশ্রমের ফলে তিনি আংশিক লাভবান হন। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তার। পরে তিনি কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় ২০১৬ সালে ৪ দশমিক ৫ একর জায়গায় বারি-১ মাল্টা চাষ শুরু করেন এবং তিনি এতেও সফল হন। পরের বছর ২০১৭ সালে মাল্টার পাশাপাশি সাথী ফসল হিসেবে আগাম জাতের টক কুল বড়ই চাষ করেন। আর এভাবেই তিনি আর স্বপ্নের দিকে আস্তে আস্তে অগ্রসর হতে থাকেন। আজ তিনি কৃষি কাজ করে সফল একজন কৃষক। বর্তমানে তার বারি-১ মাল্টা, লেবু, কুল বড়ইসহ ৬টি বিভিন্ন ফলের বাগান রয়েছে। আর তার এই উদ্যোগের কারণে আশেপাশের অনেক মানুষের কর্মসংস্থান করেছেন তিনি।

সফল কৃষক মোসলেম উদ্দিন টিনিউজকে জানান, কৃষি কাজ করেও নিজের ভাগ্য বদলানো যায়। আর বেকার যারা আছেন তারা এ ধরনের চাষ করে নিজের পরিবার তথা অন্যের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারবে। বাগান দেখাশোনার জন্য চুক্তি ভিত্তিক ৭ জনকে নিয়োগ দিয়েছি। এর বাইরে ২০ থেকে ২৫ জন শ্রমিক নিয়মিত কাজ করেন।
সখীপুর উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ওবায়দুল হক খান টিনিউজকে জানান, সফল কৃষক মোসলেম উদ্দিনকে কৃষি বিভাগ শুরু থেকেই সার্বিকভাবে সহযোগীতা করে আসছে। বিভিন্ন ফলের বাগানের পাশাপাশি জেলার বাইরের বেকার যুবকদের পরামর্শ ও সহযোগিতা করে আসছেন। তিনি কৃষি কাজ করার মধ্য দিয়েও বেকারত্ব দূর করা সম্ভব বলে মনে করেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ