সখীপুরে রাস্তায় নিম্নমানের ইট ব্যবহার ॥ নির্মাণকাজ বন্ধ করেছে গ্রামবাসী

শেয়ার করুন

মোস্তফা কামাল, সখীপুর ॥
নিম্নমানের ইট ব্যবহার করায় টাঙ্গাইলের সখীপুরের কচুয়া-আড়াইপাড়া সড়কের নির্মাণকাজ বন্ধ করে দিয়েছেন গ্রামবাসী। গত সোমবার (১৮ নভেম্বর) নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ করা কচুয়া গ্রামের বিক্ষুব্ধ জনগন সড়কের নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেয়। এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আহসান হাবীব নির্মাণ কাজ বন্ধ করার এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন।
উপজেলা এলজিইডি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কচুয়া-আড়াইপাড়া বাজার পর্যন্ত দুই কিলোমিটার ৯০০মিটার সড়কের নির্মাণ কাজ পায় রহমান কনস্ট্রাকশন নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কচুয়া বাজার থেকে ৩২০মিটার ইটের সলিং (এইচবিবি) ও বাকি ২৫৮০ মিটার কার্পেটিং করার জন্য এক কোটি ১১ লাখ টাকার নির্মাণ কাজ গত (৯ নভেম্বর) আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। ইতিমধ্যে কচুয়া বাজার থেকে ইট সলিংয়ের কাজ চলছে। সোমবার (১৮ নভেম্বর) ভোরে নিম্নমানের দুই ট্রাক ইট ওই সড়কের জন্য আনা হয়। সকাল নয়টা থেকে নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ শুরু হওয়ার খবরে কচুয়া বাজার বণিক সমিতি ও গ্রামের লোকজন একত্রিত হয়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সড়কের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। পরে এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী ঘটনাস্থলে গিয়ে নিম্নমানের ইট দিয়ে নির্মাণ কাজ করার সত্যতা খুঁজে পান।
কচুয়া বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও কালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল আলীম টিনিউজকে বলেন, প্রথমে কিছু ভাল ইট দিয়ে সড়কের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সোমবার (১৮ নভেম্বর) সকালে নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ শুরু হওয়ার খবর পাওয়ার পর গ্রামবাসীরা একত্রিত হয়ে ঠিকাদারকে কাজটি বন্ধ রাখার জন্য বলে। পরে কাজ বন্ধ করে নির্মাণ শ্রমিকেরা চলে যায়। কচুয়া গ্রামের বাসিন্দা আতিকুর রহমান দুলাল টিনিউজকে বলেন, এখন আমরা অনেক সচেতন। এ দেশ আমাদের, সড়ক আমাদের। আমাদের শ্রম-ঘাম ও ট্যাক্সের টাকায় সড়ক নির্মাণ হচ্ছে। অতএব নিম্নমানের কাজ করে ঠিকাদার প্রকৌশলীকে ম্যানেজ করে আর পার পাবে না।
সড়কের নির্মাণ কাজ দেখার দায়িত্বে থাকা এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী আবদুল জলিল মুঠোফোনে টিনিউজকে বলেন, আমি ঢাকায় প্রশিক্ষণে রয়েছি। সোমবার (১৮ নভেম্বর) নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ শুরু করায় গ্রামবাসী বাধা দিয়েছে। আমি উপস্থিত থাকলে হয়তো এমন কাজ হতো না। আমার কাজটি গ্রামবাসী করায় তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এ বিষয়ে সখীপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আহসান হাবীব টিনিউজকে বলেন, নিম্নমানের ইট ব্যবহার করার খবর শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার অভিযোগে ওই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এসব অভিযোগের ব্যাপারে রহমান কনস্ট্রাকশনের ঠিকাদার নজরুল ইসলাম টিনিউজকে বলেন, ভুলবশত সোমবার (১৮ নভেম্বর) এক ট্রাক ইট খারাপ এসেছে। এজন্য ইটভাটার মালিক দায়ী। আমি সঙ্গে সঙ্গে নিম্নমানের ইট ফেরত নেয়ার জন্য বলেছি। কারণ আমি টাকা দিয়ে ভালো ইট কিনেছি। আমি কেন খারাপ ইট নেবো। তিনি সচেতনতার জন্য গ্রামবাসীকে ধন্যবাদ জানান।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ