Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

সখীপুরে প্রেমিকের সামনে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ ॥ ভিডিও ধারণ, গ্রেফতার ১

শেয়ার করুন

মোস্তফা কামাল, সখীপুর ॥
অভিভাবকদের চোখ ফাঁকি দিয়ে প্রেমিক-প্রেমিকার বাড়ি থেকে তিন কিলোমিটার দূরে একটি খেলার মাঠে বসে গল্প করছিল। এ সময় পাঁচ বন্ধু মিলে তিনটি মোটরসাইকেল নিয়ে ওদের জোরপূর্বক তুলে নিয়ে টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার বহেড়াতৈল রেঞ্জের আওতাধীন কাকড়াজান বিটের একটি গহীন বনের ভিতর নিয়ে যায়।
জানা যায়, নির্জন ওই বনের একটি খালি জায়গায় প্রেমিক-প্রেমিকাকে ওরা বিবস্ত্র করে চর-থাপ্পর মারে। একে অপরকে জড়িয়ে ধরতে বলে। না ধরায় আবারও চর-থাপ্পর মারে। এক পর্যায়ে ওরা প্রেমিক-প্রেমিকাকে ধর্ষণে লিপ্ত হতে চাপ দেয়। পরে এক সময় সাদ্দাম হোসেন, জালাল ও আশরাফুল ইসলাম প্রেমিকের সামনেই প্রেমিকাকে গণধর্ষণ করে। নজরুল ইসলাম ও আফাজ উদ্দিন ধর্ষণের সুযোগ না পেলেও তাঁরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে এসব ঘটনার চিত্র মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। এক পর্যায়ে ওই প্রেমিক ডাক-চিৎকার শুরু করে। চিৎকারে এক ব্যক্তি এগিয়ে এলে মোটরসাইকেল যোগে ধর্ষক পাঁচ বন্ধু পালিয়ে যায়।
এ ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার (১১ মার্চ) টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার বহেড়াতৈল ইউনিয়নের একটি বনে।
বিষয়টি জানাজানি হলে গ্রাম্য সালিসে বিচার হওয়ার চেষ্টা চলে। এক পর্যায়ে কোন বিচার না পেয়ে রোববার (১৭ মার্চ) দুপুরে ধর্ষিত কিশোরীর পিতা সখীপুর থানায় পাঁচজনকে আসামি করে সখীপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ দুই নং আসামী জালাল উদ্দিনকে (২৫) গ্রেফতার করেছে। পুলিশ জালালের কাছ থেকে ধর্ষণের ও প্রেমিক-প্রেমিকাকে বিবস্ত্র করার ভিডিও উদ্ধার করে। ওই কিশোরীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
মামলা সূত্রে ও স্থানীয়রা জানায়, গত সোমবার (১১ মার্চ) বিকেলে ওই কিশোরী তার প্রেমিকের সঙ্গে উপজেলার বহেড়াতৈল ইউনিয়নের উলিয়াচালা খেলার মাঠে বসে গল্প করছিল। এ সময় ওই ইউনিয়নের দক্ষিণ ঘাটেশ্বরী গ্রামের ই¯্রাফিল মিয়ার ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২৭), তার বন্ধু আশরাফুল (২৬), জালাল উদ্দিন (২৫), নজরুল উসলাম (৩০) ও আফাজ উদ্দিন (২৩) তিনটি মোটরসাইকেল নিয়ে সেখানে যায় এবং তাদের গোপন অভিসারের গতিবিধি ফলো করে। পরে ওই প্রেমিক যুগলদের হাত-মুখ বেঁধে পাশের একটি বনে নিয়ে যায়। সেখানে তাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করা হয়। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে প্রেমিক আবদুর রহিম বাবুকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে সাদ্দাম, আশরাফুল ও জালাল ওই কিশোরীকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ভিডিওচিত্র মোবাইলে ধারণ করা হয়। এরপর প্রেমিক যুগলকে বিবস্ত্র করে তাদের নানা আপত্তিকর দৃশ্যও মুঠোফোনে ধারণ করে তারা। বিকেল ৪টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলে তাদের ওপর এই পাশবিক নির্যাতন। পরে ঘটনা কাউকে বললে অশ্লীল ভিডিও এবং ছবি ইন্টারনেটের মাধ্যমে ফেসবুক ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।
ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী জানায়, আমার বন্ধুকে নিয়ে আলাপ করছিলাম। হঠাৎ ওরা আমাদের কাছে এসে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে। একপর্যায়ে জোরপূর্বক আমাদের তুলে নিয়ে যায়। আমি তাদের উপযুক্ত বিচার চাই।
স্থানীয় ইউপি সদস্য হিরো তালুকদার বলেন, ঘটনাটি দুঃখজনক ও নিন্দনীয়। এর সঙ্গে জড়িতরা এলাকার চিহ্নিত বখাটে। এ অমানুষিক ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবি করেন তিনি। ওই কিশোরীর বাবা বলেন, আমি অসহায় দরিদ্র মানুষ। যে বখাটেরা আমার মেয়েটার সর্বনাশ করলো, আমি তাদের উপযুক্ত শাস্তি চাই।
এ ব্যাপারে সখীপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার আইও এএইচএম লুৎফুল কবির টিনিউজকে বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে ভিডিও ধারণ করা মুঠোফোনটিও উদ্ধার করা হয়েছে। অন্যদেরও গ্রেফতারে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে পুলিশ মাঠে নেমেছে। পরে রোববার (১৭ মার্চ) ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ