মেয়র জামিলুর রহমান মিরন ও আজাদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

শেয়ার করুন

ছবি:আজাদ সিদ্দিকী, টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরন।

আদালত সংবাদদাতা:

আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুর রহমান খান বাপ্পি হত্যা মামলায় টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান  মিরন ও কাদের সিদ্দিকীর ছোট ভাই আজাদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে গত সোমবার (৭ মে) গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।
মেয়র জামিলুর টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। অপর দিকে আজাদ সিদ্দিকী সরকারি সা’দত কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক সহসভাপতি (ভিপি)। তিনি তাঁর ভাই কাদের সিদ্দিকী প্রতিষ্ঠিত কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
আদালত সূত্র জানায়, জামিলুর ও আজাদ সিদ্দিকী উভয়েই এমপি আমানুর রহমান খান রানার বড় ভাই আমিনুর রহমান খান বাপ্পি হত্যা মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত আসামি। দুজনই এ মামলায় জামিনে রয়েছেন। টাঙ্গাইলের প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে গত সোমবার (৭ মে) এই মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য ছিল। ওই দিন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে আটক এমপি আমানুর রহমান খান রানাকে আদালতে হাজির করা হয়। তিনি তাঁর সাক্ষ্য দেন। কিন্তু জামিলুর ও আজাদ পরপর বেশ কয়েক তারিখ আদালতে হাজির না থাকায় আদালতের বিচারক আবুল মনসুর মিয়া তাঁদের জামিন বাতিল করে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

২০০৩ সালের ২১ নভেম্বর সন্ধ্যায় এমপি আমানুর রহমান খান রানার বড় ভাই আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুর রহমান খান বাপ্পি সন্ত্রাসী হামলায় তাঁদের বাসার কাছে নিহত হন। এ সময় বাপ্পির সঙ্গী আবদুল মতিন নামের এক ব্যক্তিও নিহত হন। ঘটনার পর আমানুরের বাবা আতাউর রহমান খান বাদী হয়ে টাঙ্গাইল থানায় মামলা করেন। মামলায় কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি আবদুল কাদের সিদ্দিকী ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর দুই ভাই মুরাদ সিদ্দিকী ও আজাদ সিদ্দিকী, টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান, জেলা বিএনপির নেতা আলী ইমাম তপন, পৌর কমিশনার রুমি চৌধুরী, ছাত্রদল নেতা আবদুর রৌফসহ ২০ জনকে আসামি করা হয়। তদন্ত শেষে সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার খোরশেদ আলম ২০০৭ সালে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন।

 

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ