মির্জাপুরে বৃষ্টি, শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশায় সরিষার ক্ষতির আশঙ্কা

শেয়ার করুন

জাহাঙ্গীর হোসেন, মির্জাপুর ॥
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বৃষ্টি, শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশার কারণে সরিষা আবাদে মারাত্মক ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। কৃষকেরা চলতি বছর সরিষা ফলন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র মতে, এ বছর উপজেলার প্রায় ৮ হাজার ৯০০ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। তবে বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে ৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়। এর মধ্যে উফশী জাতের প্রায় ৪ হাজার ও স্থানীয় জাতের ৪ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি রয়েছে।
এলাকাবাসী টিনিউজকে জানান, বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) রাত থেকে হঠাৎ গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) সকাল পৌনে আটটা থেকে আধা ঘন্টারও বেশি সময় মূষলধারে বৃষ্টি হয়। এরপর বেলা ১১টা পর্যন্ত চলে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। এতে ফুল থাকা স্থানীয় জাতের সরিষার গাছ মাটিতে নুইয়ে পড়ে। প্রায় ১০ দিন আগে মির্জাপুরে সপ্তাহ ব্যাপী শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশা পড়ে। ওই সময় সূর্যেরও খুব একটা দেখা মেলেনি। ফলে খেতে সরিষার ফুলে মধু আহরণকারী মৌমাছি বা পতঙ্গ না আসায় ফুলে পরাগায়ন ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি অনেক স্থানে পাঁপড়িও পঁচে ঝড়ে যায় বলে জমির মালিকেরা জানান।
সরেজমিনে উপজেলার বাওয়ার কুমারজানী, বাইমহাটী, কোর্টবহুরিয়া বুড়িহাটী, ঘুগী, ভাওড়া, কুতুববাজার, পোষ্টকামুরীসহ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ক্ষেতের মধ্যে সরিষা গাছ নুইয়ে পড়েছে। অনেক স্থানে বৃষ্টির কারণে ফুলও ঝড়ে গেছে। বাওয়ার কুমারজানী গ্রামের নুরুল ইসলাম টিনিউজকে জানান, বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) রাতের বৃষ্টির ফলে এলাকার ক্ষেতের অধিকাংশ সরিষা গাছই মাটিতে নুইয়ে পড়েছে। এর আগে শৈত্যপ্রবাহ ও ঘুন কুয়াশার কারণে সূর্যের দেখা মিলছিল না। ফলে মৌমাছি কিংবা পতঙ্গ ফুলে না বসায় পরাগায়নও হয়নি বলে ধারণা করা হচ্ছিল। এ অবস্থা চলতে থাকলে সরিষা আবাদ মারাত্মকভাবে ব্যহত হবে। গোড়াইল গ্রামের আনোয়ার হোসেন টিনিউজকে বলেন, এ বছর যারা আগাম সরিষার আবাদ করেছেন তাঁদের ক্ষতির সম্ভাবনা বেশি রয়েছে। চাকলেশ্বর গ্রামের ফরিদ মিয়া টিনিউজকে বলেন, আমরা প্রায় সাড়ে ৪ পাকি (৫৬ শতকে ১ পাকি) খ্যাতে সরিষা বুনেছি। বৃষ্টির আর কুয়াশার যে অবস্থা। আমরা সরিষা ঠিকমত ঘরে আনা পারুম কিনা তা নিয়া শঙ্কায় আছি।
এ বিষয়ে মির্জাপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ মশিউর রহমান টিনিউজকে বলেন, বৃষ্টি ও বৈরি আবহাওয়ার কারণে উফশী জাতের সরিষার ক্ষতি হবে না। তবে স্থানীয় জাতের সরিষার পরাগায়ন ব্যাহত হবে। ঠিকমত সূর্যের আলো না পেলে ফলন কমে যেতে পারে। এতে কৃষকেরা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ