Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

মির্জাপুরে গণপিটুনিকে চোর নিহত

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার,মির্জাপুর: টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গণপিটুনিতে মালেক (৩৩) নামের এক চোরের মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের বরাটি গ্রামের মিনজু মিয়ার বাড়িতে মঙ্গলবার (০৯এপ্রিল) রাতে এ ঘটনা ঘটে। পরদিন বুধবার (১০এপ্রিল)  মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটে । ঘটনায় ৩ জন নেশাযুক্ত খাবার খেয়ে গুরুতরাবস্থায় চিকিৎস্বাধীন রয়েছেন।

পুলিশ এবং এলাবাবাসী জানায়, গত ২ মাস পূর্বে মালেক বরাটি গ্রামের রতন মিয়ার বাড়িতে গৃহস্থালী কাজ শুরু করে। তবে রতনের বাড়িতে ঘুমানোর জায়গা না থাকার কারণে মালেককে পাশের মিনজু মিয়ার (প্রবাসী) বাড়িতে থাকতে দেয়া হয়। ২ দিন থেকে রতনের বাড়িতে কাজ করে সে চলে যায়। পরবর্তীতে ২ মাস পর মঙ্গলবার (০৯ এপ্রিল) রাতে ঐ মিনজু মিয়ার বাড়িতে প্রবেশ করে। সাথে করে জুস, রসমালাই, দই, বিস্কুট ইত্যাদি নেশাযুক্ত খাবারও নিয়ে আসে। এ দিন মিনজু মিয়ার স্ত্রী মর্জিনা বেগম তার শ্বশুড় বাড়িতে বেড়াতে যায়। এমতাবস্থায় বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার সময় প্রচন্ড ঝড় হওয়ার ফলে সে শশুড় বাড়িই থেকে যায়। পরে রাতে তার মেয়েরা তাকে ফোন দিয়ে নিহত চোরের কথা বলে এবং সে থাকতে চাইলে না করা হলেও নানা কৌশলে সে বাড়িতে অবস্থান করে। ঝড়ের কারণে মর্জিনা বাড়িতে না আসতে পেরে তার চাচা স্থানীয় মসজিদের পেশ ঈমামকে বাড়িতে থাকতে বলেন। পরে ঈমাম বাড়িতে আসার পর লোকটির আনা খাবার খেয়ে কিছুক্ষণ পর সন্দেহ হলে এলাকাবাসীকে খবর দিতে যায়। এদিকে বাড়িতে থাকা মর্জিনার মেয়েরা নেশাযুক্ত খাবার খেয়ে অজ্ঞান হয়ে যায়। এ সুযোগে মালেক জিনিসপত্র ব্যাগে ভরতে থাকে ।.পরে আহত ঈমামের ডাকে এলাকাবাসী ঘরে ঢুকে মর্জিনার ২ মেয়েকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে এবং চোরকে সকল জিনিসপত্র ব্যাগে বরতে দেখে গণপিটুনি দেয়। ঘটনার সংবাদ পেয়ে পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে আজ বুধবার চিকিৎস্বাধীন অবস্থায় চোরের মৃত্যু হয়। এদিকে আহত ৩ জনের অবস্থাও গুরুতর । এ বিষয়ে মির্জাপুর থানা ওসি এ কে এম মিজানুল হক বলেন, নিহতের লাশ বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে । এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে, আরেকটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ