Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

দেলদুয়ারে মাদ্রাসার জমি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটী ইউনিয়নের কাতুলী গ্রামে মাদ্রাসায় দান করা ভূমি নিয়ে টানা হেচড়ার প্রতিবাদে শনিবার (২০ এপ্রিল) সকালে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খান ফিরোজ।
টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, কাতুলী গ্রামে ফজলুল হক নামে কোন মুক্তিযোদ্ধা নেই। এ গ্রামে তিনজন বীর মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে দু’জন নওয়াব আলী মিয়া ও বাদশা খান ইন্তেকাল করেছেন। অপরজন সার্জেণ্ট (অব.) আব্দুল আহাদ খান যথারীতি সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন। অথচ কাতুলী গ্রামের জনৈক ফজলুল হকের ছেলে আব্দুল বাতেন তার বাবাকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করে মাদ্রাসায় দান করা ভূমি নিজেদের বলে দাবি করছে। তারা ইতোমধ্যে একটি পত্রিকায় এ সংক্রান্ত একটি মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও ষড়যন্ত্রমূলক একটি সংবাদও প্রকাশ করেছে।
তিনি বলেন, স্থানীয় ফজলুল হক ও নুরুল ইসলাম দুই ভাই। ফজলুল হক নানা অপকর্মে লিপ্ত থাকায় ১৯৭৬ সালের ১৭ জানুয়ারি প্রকাশ্য দিবালোকে শ’ শ’ মানুষের সামনে মুখোশধারীরা তাকে হত্যা করে। পরে ফজলুল হকের ছেলে আব্দুল বাতেন তার চাচা নুরুল ইসলামের সম্পত্তি জবরদখলের চেষ্টা করে। এ অবস্থায় নুরুল ইসলাম তার ভূমি স্থানীয় মাদ্রাসার নামে দান করে দেন। প্রকৃতপক্ষে আব্দুল বাতেন মাদ্রাসার ওই ভূমি জবরদখলের অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। তিনি পত্রিকায় প্রকাশিত ওই মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করে এবং এ বিষয়ে প্রশাসনসহ সকলকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানান।
সংবাদ সম্মেলনে ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খান ফিরোজের সাথে কাতুলী মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম, বীর মুক্তিযোদ্ধা সার্জেণ্ট (অব.) আব্দুল আহাদ খান, রফিকুল ইসলামসহ কাতুলী গ্রামের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ