তরুণরা একটি রাষ্ট্রের শক্তি- ড. আব্দুর রাজ্জাক

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার, ধনবাড়ীঃ
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেছেন, আজকের তরুণ সমাজই উন্নত সমৃদ্ধ ডিজিটাল বাংলাদেশের চালিকা শক্তি। তাই তরুণ সমাজকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষত ও দেশপ্রেমে জাগ্রত হতে হবে। কালে কালে তারুণ ও তারুণ্যের জয়ধ্বনি ধ্বনিত হচ্ছে জগতে। তাদের শৌর্য-বীর্য, সাহস ও উদ্দীপনায় পৃথিবীতে আসছে নিত্য পরিবর্তন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তরুণরাই পারেন অসম্ভবকে সম্ভব করতে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে কোন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে। তরুণরা একটি রাষ্ট্রের শক্তি। দেশের প্রয়োজনে কঠিন অনেক কাজও করে ফেলেন তারা।
তিনি শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী সরকারি কলেজ মাঠে স্থানীয় সেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘তরুনের হাট’ এর উদ্যোগে তারুণ্যের উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।
মন্ত্রী আরো বলেন, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদক থেকে তরুণ সমাজকে দূরে রাখতে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের কোন বিকল্প নেই। এজন্যই বর্তমান সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের উপরও গুরুত্ব দিচ্ছে। আজকের তরুণ সমাজই উন্নত সমৃদ্ধ আধুনিক বাংলাদেশ পরিচালনা করবে। তাই তরুণ সমাজকে দেশ প্রেমে জাগ্রত হতে হবে। প্রতিটি গ্রামই হবে শহর। দেশ এখন উন্নয়নশীল, সেই সাথে মানুষের জীবন-যাত্রার মান উন্নয়ন হচ্ছে। যোগ্য তরুণ সমাজ দেশের সবচেয়ে বড় সম্পদ। তারুন্যের শক্তি, বাংলাদেশের সমৃদ্ধি। তাদের কাছে জাতির অনেক আশা। তারুণ্য এক প্রত্যয়, চেতনার উৎস, অনুপ্রেরণা। তারুণ্যের শক্তি ও নতুন বাংলাদেশের স্বপ্ন সারথি। বাঙালির স্বপ্নে যুগ যুগ ধরে তরুণরাই নেতৃত্ব দিয়েছে। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনসহ সব স্বপ্নের সূচনা তরুণদের চোখে-মুখেই ধরা দিয়েছে আলোর ঝলকানি হয়ে। তারণ্যের জোয়ারকে বেঁধে রেখে নয়, সেই জোয়ারকে শক্তির টারবাইনে স্থানান্তরিত করে দেশকে সম্মুখে এগিয়ে নিতে হবে বিদ্যুতের মতো। বিগত ১১ বছর ধরে শিক্ষা, কর্মসংস্থান এবং তাদের মেধা ও প্রতিভা বিকাশের সুযোগ অবারিত করতে সরকার চেষ্টা চালিয়েছে অফুরান। এই তরুণরাই বয়ে নিয়ে আসবে সাফল্য, প্রথাগত সনাতনী ব্যবস্থা ভেঙে গড়ে তুলবে আধুনিক সমাজ কাঠামো। তারুণ্যের শক্তিকে কাজে লাগিয়ে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।
মন্ত্রী আরও বলেন, সমাজে তৈরি হওয়া অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক আকাঙ্খা বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছে। এই রাষ্ট্রের ভেতর দিয়েই কৃষক চেয়েছেন জোতদারদের হাত থেকে মুক্তি, শ্রমিক চেয়েছেন শ্রমের যথার্থ মূল্য ও মর্যাদা, শহুরে মধ্যবিত্ত চেয়েছেন চাকরি, চিন্তা ও কাজের স্বাধীনতা, ধনিক শ্রেণি চেয়েছে আপন পুঁজির বিস্তার। মধ্যবিত্তের মন থেকে গড়ে ওঠা জাতীয় চেতনার পাটাতনে প্রায় সব শ্রেণি শামিল হয়ে তৈরি করেছে নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশ যার স্বপ্নদ্রষ্টা ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমাদের সন্তানদের আসুন ঢেকে নেই মানবিক চাদরে। সুস্থ, সুন্দর, মননশীলতা চর্চার মাধ্যমে তারা বেড়ে উঠুক অপার সৌন্দর্য ভাবনার নিরঙ্কুশ স্বাধীনতায়,এই আহবান জানান মন্ত্রী। তারুণ্যের আলোয় দূর হোক অন্ধকার- স্লোগানকে সামনে রেখে এবারের বর্ষ পূর্তি অনুষ্ঠিত হলো। অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা, কৃতি শিক্ষার্থী ও গুণিজন সংবর্ধনা দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
সংগঠনের উপদেষ্টা রাসেল আহমেদের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চলচ্চিত্র অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদ, চলচ্চিত্র অভিনেত্রী আরিফা পারভীন জামান মৌসুমী, ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফা সিদ্দিকা, ধনবাড়ী পৌরসভার মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন প্রমুখ।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ