ডিজিটাল মামলায় শরিয়ত বয়াতি রিমান্ড শেষে কারাগারে

শেয়ার করুন

আদালত সংবাদদাতা ॥
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বাউল শরিয়ত সরকারকে (৩৫) রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করা হয়। মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে টাঙ্গাইল জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মির্জাপুর থানা আমলী আদালতের বিচারক আকরামুল ইসলাম তাকে কারাগারে প্রেরণের আদেশ দিয়েছেন।
টাঙ্গাইল আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট এস আকবর খান টিনিউজকে জানান, তিনদিনের রিমান্ড শেষে মির্জাপুর থানা পুলিশ বাউল শরিয়ত সরকারকে আদালতে হাজির করাসহ জামিনে আপত্তি জানায়। পুলিশের জামিনের আপত্তিসহ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির সম্ভাবনা উল্লেখপূর্বক উপস্থাপনের পর আদালতের বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করেন। আদালত মামলার পরবর্তী তারিখ আগামী (১২ ফেব্রুয়ারি) ধার্য করেছেন।
উল্লেখ্য, গত (২৪ ডিসেম্বর) ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলার রৌহাট্টেক পীরে কামেল হযরত হেলাল শাহর ১০ম বাৎসরিক মিলন মেলায় পালাগানের অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন বাউল শরিয়ত সরকার। ওই পালা গান পরে ইউটিউবের মাধ্যমে ভাইরাল হয়। পালা গানে তিনি হযরত দাউদ নবী (আ.) ও মহানবী (সা.) কে নিয়ে বিতর্কিত বক্তব্য দেয়ার অভিযোগ এনে গত (৯ জানুয়ারি) উপজেলার আগধল্যা গ্রামের শওকত আলীর ছেলে মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় তাকে শরিয়ত সরকার বয়াতিকে আসামী করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন। গত (১১ জানুয়ারি) সকালে ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার বাশিল এলাকা থেকে বাউল শরিয়ত সরকারকে গ্রেফতার ও বিকেলে আদালতে পাঠানোসহ ১০দিনের রিমান্ড আবেদন করে।
পালা গানে শরিয়ত সরকার বলেন, গান-বাজনা হারাম, কোরআনে কোথাও লেখা নেই। এছাড়া দাউদ নবী কোনো নবী নন, তিনি বয়াতি ছিলেন। রাসুল (সা.) গান না শুনে ঘুমাইতেন না। তিনি আরও বলেন, নবীজি (সা.) আবু মুসা আশয়ারী (রা.)-কে ২৩ রকমের গানের বাদ্যযন্ত্র হাদিয়া প্রদান করেছেন। ওইসব বাদ্যযন্ত্র দাউদ নবিজির ছিল। মসজিদের ইমাম ও ইসলাম ধর্ম নিয়েও ভুল ব্যাখ্যা দেন তিনি।
ওই পালা গান অনুষ্ঠানে বাউল শিল্পী আরও বলেন, যারা নামাজ পড়ে সেজদা দিয়ে কপালে কালো দাগ করে, তাদের কপাল থেকে ১১৩টি কিরা (একধরনের পোকা) বের হয়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ