Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

টাঙ্গাইল-৮ আসনে কুড়ি সিদ্দিকীকে প্রতিহত করার ঘোষণা বিএনপির

শেয়ার করুন

সখীপুর সংবাদদাতা ॥
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঋণখেলাপি ও দুর্নীতির অভিযোগে টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনে মনোনয়ন বাতিল হয়ে যায়। এরপর ক্ষমতা ধরে রাখতে নিজ কন্যা কুড়ি সিদ্দিকীর কাছে মনোনয়ন হস্তান্তর করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী।
এদিকে এমন গুঞ্জনে টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান প্রচন্ড ক্ষিপ্ত হয়ে নির্বাচনে কুড়ি সিদ্দিকীকে কোন ধরনের সহযোগিতা না করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন এবং কুড়ি সিদ্দিকীকে প্রতিহত করতে বিএনপির কর্মীদেরও আহ্বান জানিয়েছেন। টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি সামছুল আলম তোফা এই গুঞ্জনের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে।
এদিকে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ও বিএনপি নেতা আহমেদ আজম খানের দ্বন্দে স্থানীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতাকর্মীদের মধ্যেও বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে। ক্ষমতা ধরে রাখতে নিজ কন্যা কুড়ি সিদ্দিকীকে মনোনয়ন হস্তান্তর করে কাদের সিদ্দিকী ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বেঈমানি করেছেন দাবি করে টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি সামছুল আলম তোফা বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কাদের সিদ্দিকী টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) ও টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) এই দুটি আসনে মনোনয়ন বাতিল হওয়া নিয়ে সন্দেহ ছিল ঐক্যফ্রন্টের। কারণ তার বিরুদ্ধে ঋণখেলাপি ও দুর্নীতির অভিযোগ ছিল। আমাদের সন্দেহই শেষ পর্যন্ত সত্য হয়েছে। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনকে কথা দিয়েছিলেন যে, দু’টি আসনে তিনি যদি অযোগ্য ঘোষিত হন তবে একটি আসন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খানকে ছেড়ে দিবেন। অথচ বাস্তবতা হলো- তিনি টাকার বিনিময়ে বিএনপি নেতা আহমেদ আজম খানের কাছে টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনটি বিক্রি করতে চেয়েছেন। তিনি ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বেঈমানি করেছেন। ক্ষমতা ধরে রাখতে নিজ কন্যা কুড়ি সিদ্দিকীকে মনোনয়ন দিয়েছেন বলে এমন গুঞ্জন শুনছি। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। তিনি ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির সঙ্গে বেঈমানি করেছেন। আমরা অরাজনৈতিক প্রার্থী ও ভোটারদের কাছে জনপ্রিয় না এমন প্রার্থী কাদের সিদ্দিকীর মেয়ে কুড়ি সিদ্দিকীকে কোন রকম সহায়তা করবো না।
একই বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান বলেন, কাদের সিদ্দিকী সরাসরি ঐক্যফ্রন্ট, বিএনপি এবং ধানের শীষের নেতাকর্মী, সমর্থক ও ভোটারদের সঙ্গে বেঈমানি করেছেন। তিনি ওয়াদা করেছিলেন যে, মনোনয়নে ঝামেলা হলে তিনি অন্তত একটি আসন আমাকে ছেড়ে দেবেন। এখন তিনি রং পাল্টিয়েছেন। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। এছাড়া টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনের ঐক্যফ্রন্টের সমর্থকরা এই আসনে আমাকে চেয়েছিলেন। বিষয়টি বুঝতে পেরে কাদের সিদ্দিকী নিজ মেয়েকে মনোনয়ন দিয়েছেন। সত্যিই যদি এ রকম হয়, তবে আমরা তাকে প্রতিহত করব এবং নির্বাচনে ধানের শীষের কোন নেতাকর্মীর সহযোগীতা পাবে না। কারণ তারা বাপ-মেয়ে দু’জনই বেঈমান। আমার ধারণা আসন্ন নির্বাচনে কুড়ি সিদ্দিকীকে ঐক্যফ্রন্টের কোন নেতাকর্মীই ভোট দিবে না। এটাই হবে কাদের সিদ্দিকী ও কুড়ি সিদ্দিকীর জন্য উপযুক্ত শাস্তি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ