টাঙ্গাইলে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী হত্যা মামলায় স্বামীর মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রদান

শেয়ার করুন

আদালত সংবাদদাতা ॥
টাঙ্গাইলে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূ মন্টি ঘোষ হত্যা মামলায় স্বামী রনি ঘোষকে (৩২) মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) দুপুরে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় প্রদান করেন। দন্ডিত রনি ঘোষ টাঙ্গাইল শহরের সাহাপাড়ার রবি ঘোষের ছেলে। এছাড়া এ মামলায় গৃহবধূ মন্টি ঘোষের শ্বশুড় রবি ঘোষ ও দন্ডিত রনি ঘোষের ভাইয়ের স্ত্রী পূর্ণিমা ঘোষের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদেরকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।
মামলার বিবরণ এবং আদালত সূত্রে জানা যায়, বিগত ২০১৩ সালের (৩০ জুন) গাজীপুর জেলার নীলনগর গ্রামের চিনি ঘোষের মেয়ে মন্টি ঘোষের সাথে টাঙ্গাইল শহরের সাহাপাড়ার রবি ঘোষের ছেলে রনি ঘোষের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই দাম্পত্য কলহ চলছিল। বিয়ের মাত্র আড়াই মাসের মাথায় স্বামী রনি ঘোষ স্ত্রীর কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। পরে ওই টাকা তার পিতার কাছ থেকে এনে দেয়ার জন্য প্রতিনিয়ত চাপ দিতে থাকে। একই সাথে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করেন। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ চলছিল। বিগত ২০১৩ সালের (১৪ সেপ্টেম্বর) রাতে টাঙ্গাইল শহরের সাহাপাড়ায় স্বামী রনি ঘোষসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা গৃহবধূ মনটি ঘোষকে গলাটিপে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।
এ ঘটনার পরদিন (১৫ সেপ্টেম্বর) নিহতের পিতা চিনি ঘোষ বাদি হয়ে স্বামী রনি ঘোষ, শশুর রবি ঘোষ, ভাই অজিত ঘোষ, সঞ্জিত ঘোষ ও জা পূর্ণিমা ঘোষসহ পাঁচজনকে আসামী করে টাঙ্গাইল সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।
তদন্ত করে পুলিশের উপপরিদর্শক সালাউদ্দিন অজিত ঘোষ ও সঞ্জিত ঘোষকে মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।
দীর্ঘদিন শুনানী ও যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আদালত নিহতের শশুর রবি ঘোষ ও জা পুর্নিমা ঘোষের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাদের বেকসুর খালাস দেন এবং রনি ঘোষের বিরুদ্ধে হত্যাকান্ডের অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হওয়ায় তাকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেন। সেই সাথে একলাখ টাকা জড়িমানা করেন।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি এডভোকেট একেএম নাছিমুল আক্তার নাছিম টিনিউজকে বলেন, স্বাক্ষ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে আদালতের বিচারক এ রায় দেন। মামলা চলাকালে দন্ডিত আসামী রনি ঘোষ উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হন। পরে সাজা হওয়ার ভয়ে তিনি আত্মগোপনে চলে যান। বর্তমানে আসামী রনি ঘোষ পলাতক রয়েছেন।
টাঙ্গাইল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এস আকবর আলী খান টিনিউজকে বলেন, এই মামলার রায়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যে কোন অপরাধী মৃত্যুর ভয়ে আর অপরাধ করতে সাহস পাবে না।
তবে এ মামলার রায়ে সন্তষ্ট নন মামলার বাদি চিনি ঘোষ। তিনি টিনিউজকে বলেন, যে দু’জনকে খালাস প্রদান করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ