Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

টাঙ্গাইলে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায়

শেয়ার করুন

নোমান আব্দুল্লাহ ॥
ঈদ মোবারক, ঈদ মোবারক। শনিবার (১৬ জুন) পবিত্র ঈদুল ফিতর। পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের প্রধান জামাতের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে টাঙ্গাইলের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানসহ বিভিন্ন ঈদগাহ মাঠ, মসজিদ ও মাদ্রাসা। শনিবার (১৬ জুন) সকাল সাড়ে ৮টায় টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে পবিত্র ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া শহরের বিভিন্ন পাড়া কিংবা মহল্লার মাঠে ও মসজিদগুলোতে ঈদের অন্যান্য জামাত অনুষ্ঠিত হবে। তাছাড়া ঈদের প্রধান জামাতসহ গুরুত্বপূর্ণ ঈদ গাঁয় নামাজের আগে ও পরে পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকবে।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরণ টিনিউজকে বলেন, ঈদের নামাজের জন্য প্রধান জামাত ঈদগাহ মাঠ প্রস্তুত করা হয়েছে। এখানে প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন নামাজ আদায় করবেন। এছাড়া পৌরসভায় আওতাধীন প্রায় শতাধিক স্থানে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। তিনি টিনিউজকে আরো বলেন, নিজস্ব জায়নামাজ নিয়ে মুসুল্লিরা নামাজে অংশ নিবেন। যদি ঈদের দিন সকালে বৃষ্টি হয় তাহলে প্রতিটি পাড়া/মহল্লার মসজিদগুলোতে ঈদের নামাজ আদায় করবেন মুসুল্লীরা। প্রতিটি ঈদ গায় আমাদের স্বেচ্ছাসেবক কর্মী নিয়োজিত থাকবে। তাছাড়া গুরুত্বপূর্ণ ঈদ গায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকবে। আশা করছি অন্যান্য বছরের ন্যায় এবারও সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণভাবে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হবে।
ঈদের নামাজের জন্য প্রধান ঈদ গাঁ ছাড়াও জেলা পুলিশ লাইন মাঠ, জেলখানা, আলিয়া মাদ্রাসা, বেপারি পাড়া, দিঘুলিয়া, বোয়ালী মাদ্রাসা, ধুলেরচর মাদ্রাসাসহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ পাড়া/মহল্লায় ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। ঈদের জামাত সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়, এজন্য জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে মুসুল্লিদের সবরকম নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
এদিকে সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে শুক্রবার (১৫ জুন) জেলার দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটি ইউনিয়নের শশীনাড়া গ্রামের কয়েকশ’ মুসুল্লী ঈদুল ফিতর উদযাপন করছেন। শুক্রবার (১৫ জুন) সকালে ঈদের নামাজ আদায় করেন তারা। নামাজ শেষে মুসুল্লিরা আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভসহ দেশ ও জাতির কল্যাণে মোনাজাত করেন।
এলাকাবাসীরা টিনিউজকে জানান, সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে বিগত ২০১৫ সালে প্রথম তারা ঈদুল আজহা’র ঈদ উদযাপন শুরু করেন। এরপর এবারে প্রথমবারের মতো সৌদির সাথে মিল রেখে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেন এই এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসুল্লীরা। মূলত সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের একদিন পরই আমাদের দেশে ঈদ পালন করা হয়। তবে দেশের বিভিন্ন এলাকার মতো এ অঞ্চলের মুসুল্লীরা সৌদি আরবকে তীর্থভূমি মনে করে তাদের সাথে একই দিন ঈদ পালন শুরু করেছেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ