কালিহাতীতে এসএসসি ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়!

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। বিভিন্ন উচ্চ বিদ্যালয় ঘুরে অভিভাবক ও ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে এ অভিযোগ পাওয়া যায়। তবে সরকার নির্ধারিত অতিরিক্ত নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন অধিকাংশ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। উপজেলায় ৫৩টি উচ্চ বিদ্যালয় এবং ১৯টি মাদ্রাসা রয়েছে।
অভিভাবকদের অভিযোগ স্কুল উন্নয়ন, মিলাদ, কেন্দ্র ফি ও টেষ্ট পরীক্ষায় অকৃতকার্য দেখিয়ে শিক্ষকরা আর্থিক বাণিজ্য করেছেন। যেখানে টাকা আদায়ের কোন রশিদ দেয়া হয় না। এবার বোর্ড কর্তৃক ফরম পূরণের নির্ধারিত ফি বিজ্ঞান শাখায় ১ হাজার ৯৭০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ফি ১ হাজার ৮৫০ টাকা।
জানা যায়, উপজেলার পটল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার ৫০০ টাকা থেকে ৪ হাজার টাকা, আনালিয়াবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ হাজার থেকে ৪ হাজার ৫শ’ টাকা, এলেঙ্গা জিতেন্দ্র বালা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ২ হাজা ২শ’ থেকে ৪ হাজার’ টাকা, মগড়া পাল্স উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ হাজার থেকে ২ হাজার ৫শ’ টাকা, কোকডহরা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার টাকা, দেউপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার টাকা, গোপালদীঘি কেপি ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ হাজার ৫শ’ থেকে ৩ হাজার টাকা, আউলিয়াবাদ করিমুননেছা সিদ্দিকী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার ৫শ’ টাকা, নারান্দিয়া টিআরকেএন স্কুল এন্ড কলেজ ১ হাজার ৫শ’ থেকে ২ হাজার টাকা, ভরসরাই উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার টাকা। সৈয়দা নূরজাহান উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ হাজার ৫’শ থেকে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়া একাধিক বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার আগে বিশেষ কোচিং ক্লাসের নামে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৫’শ টাকা নেয়া হয়েছে শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে। এছাড়া ভূক্তভোগী শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা টিনিউজকে জানান, কোন কোন অভিভাবক প্রতিনিধি ফরম পূরণের নাম করে অতিরিক্ত অর্থ নিয়েছেন। কিন্তু কম টাকা জমা দিয়ে ফরম পূরণ করে দিয়েছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক অভিভাবক টিনিউজকে জানান, গ্রামের দরিদ্র শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সরকারি ফি’র চেয়ে বেশি টাকা নিয়ে ফরম পূরণ করলে এটা দেখার কেউ নেই। কষ্ট হলেও আমরা বাধ্য হয়ে বেশি টাকা দিয়েছি। উপজেলার কুরুয়ার সৈয়দা নূরজাহান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাখাওয়াত হোসেন ফরম পূরণে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন আমরা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ২ হাজার থেকে ২ হাজার ২’শ টাকা নিয়েছি।
কালিহাতী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম ও সাধারণ সম্পাদক নাজমুল করিম টিনিউজকে বলেন, সমিতির সভায় বোর্ড ফি নিয়ে ফরম পূরণের সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের কোচিং ফি বাবদ প্রতি বিষয়ে ১৫০ টাকা পর্যন্ত নিতে পারবে। তবে কোন শিক্ষার্থীকে জোর করা যাবে না।
কালিহাতী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রোকেয়া খাতুন টিনিউজকে বলেন, আমার জানা মতে বিদ্যালয়গুলো বোর্ড নির্ধারিত নিয়েই এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ করেছে। অনেক সময় সারা বছরের বকেয়া বেতনাদি ফরম পূরণের সময় নেয়া হয়। ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ