করোনা সংক্রমণ রোধে সখীপুরে গ্রামে গ্রামে বাঁশের ব্যারিকেড

শেয়ার করুন

মোস্তফা কামাল, সখীপুর ॥
টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে বিভিন্ন গ্রামে বাঁশের বেড়া দিয়ে মূল সড়কে ব্যারিকেড করা হয়েছে। এই ব্যারিকেডের উদ্দেশ্য গ্রামে নতুন করে যেনো কেউ না আসতে পারে। পাশাপাশি যানবাহনের চলাচলও বন্ধ। এছাড়াও অপ্রয়োজনে সাধারণ মানুষ যেন ঘুরাঘুরি না করতে পারে সে দিকেও নজর দেয়া হচ্ছে।
বুধবার (৮ এপ্রিল) সকালে উপজেলার কাকড়াজন ইউনিয়নের বৈলারপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামে প্রবেশের মূল সড়কগুলোতে বাঁশ দিয়ে বেড়া দিয়ে যাতায়াতের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হয়েছে। পরে ওই বাঁশের বেড়ায় কাগজের সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়। সাইনবোর্ডে লেখা ‘লকডাউন’। গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য জামাল হোসেন, বণিক সমিতির সভাপতি আমিনুল ইসলাম, পাপন তালুকদার, রমজান আলী, মোস্তফা সিকদার, মুসা ও সবুজ মিয়া টিনিউজকে জানান, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এতে গ্রামের মানুষের অবাধ চলাচল বন্ধ হবে। এছাড়াও যানবাহন চলাচল বন্ধ হবে। আমরা সচেতন হলেই করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ সম্ভব।
এদিকে লকডাউনের বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম বিদ্যুত টিনিউজকে জানান, আমরা করোনা থেকে মুক্ত থাকতে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। অনেকেই সচেতন হচ্ছে। এদিকে উপজেলার বাঘেরবাড়ি, যাদবপুর পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড, কালিদাস, বংকীসহ বিভিন্ন গ্রামে প্রবেশের মূল সড়কে বাঁশের বেড়া দেয়া হয়েছে বলে জানা যায়। তারা টিনিউজকে জানায়, গ্রামবাসী সবাই মিলে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এলাকার স্থানীয়রাই মিলে গ্রামে প্রবেশের মূল সড়কে ব্যারিকেড দেয়া হয়েছে। যাতে করে অবাধ চলাচল বন্ধ হয়। আর তাদের বিশ্বাস, এভাবেই করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ সম্ভব।
এদিকে টাঙ্গাইলের সখীপুরের কাকড়াজান ইউনিয়নের বাঘেরবাড়ি গ্রামকে লকডাউন ঘোষণা করেছে ওই গ্রামের বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। বুধবার (৮ এপ্রিল) ওই শিক্ষার্থীরা ওই গ্রামে ঢোকার ছয়টি সড়কে বাঁশ দিয়ে আটকিয়ে দেন। বিনা প্রয়োজনে অন্য গ্রামের মানুষ যাতে বাঘেরবাড়ি গ্রামে না প্রবেশ করতে না পারেন সেজন্য পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এমনকি কোনো যানবাহনও চলাচল করতে পারবে না।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাহিদ হাসান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদ্দাম হোসাইন ঢাকা কলেজের খাইরুল বাশার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মারুফ, সা’দত কলেজের বাবুল, লুতফর ও শাহাজালালসহ গ্রামের কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্র সমাজ বাঘেরবাড়ি গ্রামকে লকডাউন করার নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে জানা গেছে। করোনা ভাইরাস যাতে সংক্রমিত না হয়, এজন্য ছাত্রদের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন কাকড়াজান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম বিদ্যুৎ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাহিদ হাসান টিনিউজকে জানান, শুধুমাত্র করোনা ভাইরাস থেকে গ্রামবাসীকে রক্ষা করতে রাজধানীর কুয়েক মৈত্রী হাসপাতাল থেকে আসা বাঘেরবাড়ি গ্রামের মৃত জাহিদের মা ও বোনকেও গ্রামে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। তারা এখন সখীপুরের সরকারি মুজিব কলেজে স্থাপিত আইসোলেশন বিভাগে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। এছাড়াও তিনদিন আগে নারায়নগঞ্জ থেকে আসা এক ব্যক্তিকেও হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন মানছেন কিনা সেটাও আমরা দেখভাল করছি। আমাদের গ্রামকে করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা করতে আমরা বদ্ধ পরিকর।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ