Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

আট মাস ধরে বিদ্যুত নেই ভূঞাপুর পোস্ট অফিসে

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
ডিজিটাল পদ্ধতির মধ্যে যে সকল দফতরের কার্যক্রম নিয়ে আমরা গর্ব করি তা থেকে বাদ পড়ে না পোস্ট অফিস। টিভি খুললেই দেখা যায় নগদ অর্থ লেনদেন, ডিপিএস, ডিপোজিটসহ নানা অর্থ লেনদেনের বাহারি বিজ্ঞাপন। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠানে সেবার মান নিয়ে রয়েছে নানা অভিযোগ। এর মধ্যে নানা সমস্যায় জরজরিত টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা পোস্ট অফিস। এই অফিসের আওতায় রয়েছে ইউনিয়ন পর্যায়ের আরও ৯টি পোস্ট অফিস।
দেখা গেছে, অফিসটিতে দীর্ঘ ৮ মাস ধরে বিদ্যুত নেই। দুইতলার পুরো ভবনটি থাকে অন্ধকার ও ফ্যান বিহীন। ছোট একটা সোলার সিস্টেম থাকলে সেটি একটির বেশি বাতি জ্বলে না। ভবনে সিলিং ফ্যান ঝুলানো আছে কিন্তু সবই নষ্ট। এদিকে সামান্য বৃষ্টি হলেই ভবনের ছাদ দিয়ে পানি পড়ে। ভবনের বিভিন্ন স্থানে আস্তর খসে পড়েছে। দরজা, জানালাগুলোর বেশিরভাগই ভাঙ্গা। মেইন গেট ও করাপ্সবল গেটের অবস্থাও নাজুক। এ অবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রাদি ও প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি থাকে অরক্ষিত। এতে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। অন্যদিকে বাইরে রাখা চিঠির বক্সটিও ভাঙ্গা। যে কেউ ইচ্ছে করলে ভাঙ্গা অংশ দিয়ে চিঠিপত্র প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বের করে নিয়ে যেতে পারে।
নাইট গার্ড শাহাদত হোসেন টিনিউজকে বলেন, অফিসের তিনটি গেটের মধ্যে একটি গেটেও ভাল নেই। এছাড়া দরজা জানালাগুলো ভাঙ্গাচোড়া। যে কারণে যে কোন সময় চুরিসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আর এসব সমস্যা দূর করার জন্য এখনই কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।
এসব বিষয়ে ভুঞাপুর উপজেলা পোস্ট অফিসের পোস্ট মাস্টার সাদিয়া সুলতানা টিনিউজকে বলেন, নির্মাণে ত্রুটি থাকায় বিল্ডিংয়ের ছাদ দিয়ে পানি পড়ে, বিদ্যুৎতের সমস্ত ওয়ারিং নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে বড় ধরনের দুর্ঘটনার ভয়ে বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। বৈদ্যুতিক যে সকল যন্ত্রপাতি আছে তার বেশিরভাগই নষ্ট। এসব বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হলেও কোন ফলপ্রসূ হয়নি। তিনি টিনিউজকে আরও বলেন, সম্প্রতি শুধু চিঠি লেনদেন কম হলেও অন্যান্য কাজ বেড়েছে। আর্থিক লেনদেন বেড়েছে কয়েকগুণ। ফলে মানুষ এখন পোস্ট অফিসে নানা কাজেই এসে ভিড় করে। এছাড়া অফিসের সব দরজা, জানালা ভাঙ্গা। বাহিরের চিঠির বক্সের ঢাকনা ভাঙ্গা থাকায় অনায়াসে যে কেউ সেখান থেকে গুরুত্বপূর্ণ চিঠি নিয়ে যেতে পারবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ